চাঁদপুর। শুক্রবার ৮ ডিসেম্বর ২০১৭। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৪। ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
kzai
muslim-boys

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৩-সূরা আহ্যাব

৭৩ আয়াত, ৯ রুকু, মাদানী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

১২। আর স্মরণ কর, মুনাফিকরা ও যাহাদের অন্তরে ছিল ব্যাধি, তাহারা বলিতেছিল, ‘আল্লাহ এবং তাঁহার রাসূল আমাদিগকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়াছিলেন তাহা প্রতারণা ব্যতীত কিছুই নহে।’

১৩। আর উহাদের এক দল বলিয়াছিল, ‘হে ইয়াছরিববাসী! এখানে তোমাদের কোন স্থান নাই, তোমরা ফিরিয়া চল’ এবং উহাদের মধ্যে একদল নবীর নিকট অব্যাহতি প্রার্থনা করিয়া বলিতেছিল, আমাদের বাড়িঘর অরক্ষিত; অথচ ওইগুলো অরক্ষিত ছিল না, আসলে পলায়ন করাই ছিল উহাদের উদ্দেশ্য।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


একজন লোকের জ্ঞানের পরিধি তার অভিজ্ঞতা দ্বারা খ-ায়িত করা যায় না।

-জনলক।


যে সব ব্যক্তি নিন্দুক এবং যারা অপমানকারী, তাদের সর্বনাশ, অর্থাৎ তারা কষ্টদায়ক পরিণতি প্রাপ্ত হবে।


আজ চাঁদপুর মুক্ত দিবস মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন
প্রধান অতিথি ডাঃ দীপু মনি এমপি ? উদ্বোধক আবু নঈম পাটোয়ারী দুলাল
এএইচএম আহসান উল্লাহ
০৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


অপেক্ষার প্রহর শেষ, চাঁদপুর জেলাবাসীর কাঙ্ক্ষিত মিলনমেলা 'মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা-২০১৭' আজ থেকে শুরু হচ্ছে। আজ ৮ ডিসেম্বর শুক্রবার 'চাঁদপুর মুক্ত' দিবস। তাই আজকের এ দিবসে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে গৌরব ও ঐতিহ্যের ২৬তম এই বিজয় মেলা। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে চাঁদপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি বিজড়িত স্থান 'হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে' প্রতি বছরের ন্যায় এবারো এই বিজয় মেলা হচ্ছে। গতকাল রাতে মেলা মঞ্চে সর্বশেষ প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় মেলার স্টিয়ারিং কমিটি, উদ্যাপন পরিষদ ও বিভিন্ন উপ-পরিষদের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।



আজ ৮ ডিসেম্বর শুক্রবার সকাল ১০টায় মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বায়ান্নর মহান ভাষা আন্দোলনের অকুতোভয় সৈনিক, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহ্রাওয়ার্দীর ঘনিষ্ঠ সহচর মরহুম এমএ ওয়াদুদের সুযোগ্য কন্যা, বাংলাদেশ সরকারের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনি। মেলার শুভ উদ্বোধন করবেন চাঁদপুরের সর্বজনশ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব, সাবেক এমপিএ ও মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক মরহুম আবদুল করিম পাটওয়ারীর জ্যেষ্ঠ সন্তান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ চাঁদপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা স্টিয়ারিং কমিটির সভাপতি যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা ও চাঁদপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার এমএ ওয়াদুদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডল পিএএ, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার পিপিএম ও চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ। আজকের এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে চাঁদপুরবাসীকে উপস্থিত হওয়ার জন্যে অনুরোধ জানিয়েছেন মেলার স্টিয়ারিং কমিটির সভাপতি এমএ ওয়াদুদ, উদ্যাপন পরিষদ-২০১৭-এর চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মহসিন পাঠান, মহাসচিব হারুন আল রশীদ ও স্টিয়ারিং কমিটির সম্পাদক অ্যাডঃ বদিউজ্জামান কিরণ।



মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সমুন্নত রাখতে এবং বর্তমান প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস অবিকৃত অবস্থায় তুলে ধরার লক্ষ্যে ১৯৯২ সাল থেকে চাঁদপুরে বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা শুরু হয়। শুরুর দিকে এটি আট দিনব্যাপী হলেও মেলায় প্রতিদিন সর্বস্তরের মানুষের ব্যাপক উপস্থিতি এবং চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এর সময়সীমা বাড়তে থাকে। প্রায় দেড় যুগ ধরে এই বিজয় মেলা মাসব্যাপী হয়ে আসছে। ১ ডিসেম্বর থেকে মেলার কার্যক্রম শুরু হয়ে ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হয়। তবে ৮ ডিসেম্বর চাঁদপুর মুক্ত দিবসে (মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের এদিন চাঁদপুর হানাদার মুক্ত হয়) মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়ে থাকে।



১৯৯২ সালে চাঁদপুরে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার যাত্রা শুরু হয়ে ধারাবাহিকভাবে প্রতিবছর গৌরবের সাথে উদ্যাপিত হয়ে আসা এ মেলার এবার ২৬তম বছর। 'এসো মিলি মুক্তির মোহনায়' এ সস্নোগানে প্রতিবছর এই বিজয় মেলা চাঁদপুরের সর্বস্তরের মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয়। বাংলাদেশে সর্বপ্রথম মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা শুরু হয় চট্টগ্রামে। এরপর যদি দ্বিতীয় কোনো জেলায় মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা শুরু হয়ে ধারাবাহিকতা রক্ষা করে থাকে তাহলে সেটি চাঁদপুর। আর শুরু থেকেই চাঁদপুরের এ মেলাটি অত্যন্ত পরিচ্ছন্ন এবং সকল ধরনের অনৈতিক ও অশ্লীল কর্মকা- থেকে মুক্ত রয়েছে। এবারো সে ঐতিহ্য অক্ষুণ্ন থাকবে বলে জানিয়েছেন মেলার কর্মকর্তাগণ। এই মেলার স্টিয়ারিং কমিটি ও উদ্যাপন পরিষদসহ সকল উপ-কমিটিতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী চাঁদপুরের সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ সম্পৃক্ত রয়েছেন। এজন্যে এ মেলাটি সার্বজনীনতা পেয়েছে। আগামীতেও তা অক্ষুণ্ন থাকবে বলে চাঁদপুরবাসীর প্রত্যাশা।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৫৩৪২৫
পুরোন সংখ্যা