চাঁদপুর। রোববার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ৩ আশ্বিন ১৪২৩। ১৫ জিলহজ ১৪৩৭

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৫-সূরা ফুরকান

৭৭ আয়াত, ৬ রুকু, ‘মক্কী’

পরম করুণাাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৪৫। তুমি কি তোমার প্রতিপালকের প্রতি লক্ষ্য কর না কিভাবে তিনি ছায়া সম্প্রসারিত করেন? তিনি ইচ্ছা করিলে ইহাকে তো স্থির রাখিতে পারিতেন; অনন্তর আমি সূর্যকে করিয়াছি ইহার নির্দেশক।        

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


যে ব্যক্তি হালাল পথে রুজি করে সে প্রকৃত মুসলমান।  

-হযরত আঃ কাদের জিলানী (রহঃ)।


বিনয় ও সৌজন্য ঈমানের দুই শাখা এবং বৃথা বাক্যালাপ ও জাঁকজমক কপটতা (মুনাফেকির) দুই শাখা।     

-হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)


তুচ্ছ ঘটনার জের
শাহরাস্তিতে ছেলেকে না পেয়ে পিতার উপর হামলা ২ দিন পর মৃত্যু
শাহরাস্তি ব্যুরো
১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


শাহরাস্তিতে তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে ছেলেকে মারধর করতে এসে না পেয়ে পিতার উপর হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। মারধরের ঘটনার ২ দিন পর পিতার মৃত্যু হয়েছে। থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে চাঁদপুর মর্গে প্রেরণ করেছে। এ ঘটনায় এলাকা জুড়ে চরম চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। সরজমিনে প্রতিবেদন, স্থানীয় এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবার সূত্র জানায়, উপজেলার চিতোষী পশ্চিম ইউনিয়নের পশ্চিম খেড়িহর সোনারগাঁও গ্রামের অলি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। গত ১১ সেপ্টেম্বর ওই গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের পুত্র মানিকের গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান থেকে হাতে মেহেদী নিয়ে অলি বাড়ির জাহাঙ্গীর আলমের পুত্র সোহেল (২০), পার্শ্ববতী নরিংপুর বাজার এলাকায় আসে। এ সময় সোহেলের মেহেদী লাগানো হাত নরিংপুর গ্রামের আরিফ নামের এক যুবকের গায়ে লাগে। এ ঘটনায় নরিংপুর গ্রামের মনোহরপুরের সোহাগ, তুহিন, আরজু ও আরিফসহ ৮/৯ জন সোহেলকে হুমকি ধমকি ও মারধর করে। এ ঘটনার রেশ ধরে গত ২ দিন যাবৎ দু'পক্ষের মধ্যে হুমকি ধমকিসহ উত্তেজনা বিরাজ করে। গত ১৫ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টায় নরিংপুরের মনোহরপুর গ্রামের চেড়িয়া বাড়ির সোহাগ, তুহিন, আরজু, আরিফসহ ১৫/২০ জন হাতে থাকা দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে সোনারগাঁও অলি বাড়ির সামনে এসে মহড়া চালায় ও জাহাঙ্গীর আলমের পুত্র সোহেলকে খুঁজতে থাকে। দুর্বৃত্তদের দেশীয় অস্ত্র শস্ত্রের মহড়া দেখে স্থানীয় লোকজন ভয়ে পালিয়ে যায়। সোহেলকে না পেয়ে দুর্বৃত্তরা সোনারগাঁও গ্রামের আব্দুল মান্নানের চায়ের দোকানে এসে সোহেলের বাবা জাহাঙ্গীর আলমকে দেখতে পায়। তারা দোকান থেকে জাহাঙ্গীর আলমকে বের করে মারধর করে ফেলে রেখে চলে যায়। এরপর স্থানীয় লোকজন জাহাঙ্গীর আলমকে উদ্ধার করে খেড়িহর বাজার এলাকায় প্রাথমিক চিকিৎসা করান। একদিন পর তিনি সুস্থ হয়ে যান। ১৭ সেপ্টেম্বর শনিবার জাহাঙ্গীর আলম (৪৫) দক্ষিণ সূচিপাড়া ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় অভিভাবক প্রতিনিধি নির্বাচনে ভোটদান শেষে বিদ্যালয় থেকে বের হয়ে বাড়ির ফেরার পথে অসুস্থ হয়ে রাস্তায় পড়ে যান। পরে স্থানীয় লোকজন জাহাঙ্গীর আলমকে নরিংপুর বাজারে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে স্থানীয়রা তাকে দ্রুত শাহরাস্তি স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েনিয়ে আসলে তাকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।



খবর পেয়ে শাহরাস্তি মডেল থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে চাঁদপুরে ময়না তদন্তের জন্য প্রেরণ করে।



এ ব্যাপারে শাহরাস্তি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান জানান, প্রাথমিকভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৭১৪৯৮
পুরোন সংখ্যা