চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার ৪ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১১ শাওয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭২-সূরা জিন্ন্


২৮ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


 


১। বল, আমার প্রতি ওহী প্রেরিত হইয়াছে যে, জিন্নদের একটি দল মনোযোগ সহকারে শ্রবণ করিয়াছে এবং বলিয়াছে, 'আমরা তো এক বিস্ময়কর কুরআন শ্রবণ করিয়াছি,


২। যাহা সঠিক পথনির্দেশ করে; ফলে আমরা ইহাতে বিশ্বাস স্থাপন করিয়াছি। আমরা কখনও আমাদের প্রতিপালকের কোন শরীক স্থির করিব না,


 


 


assets/data_files/web

প্রার্থনা ও প্রশংসা এই দুটো জিনিস স্বয়ং বিধাতাও পছন্দ করেন।


-সুইডেন বাগ।


 


 


 


 


 


ধর্মের পর জ্ঞানের প্রধান অংশ হচ্ছে মানবপ্রেম-আর পাপী পুণ্যবান নির্বিশেষে মানুষের মঙ্গল সাধন।


 


 


ফটো গ্যালারি
বাজার বন্ধে স্বতঃস্ফূর্ততা
০৪ জুন, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


করোনার কারণে গত ২৬ মার্চ থেকে সরকারের ঘোষিত সাধারণ ছুটি, চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক ঘোষিত লকডাউন, ইউএনও কিংবা অন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের জরিমানা, মেয়রের নির্দেশনাসহ কোনো কিছুতেই হাজীগঞ্জ বাজারের দোকানপাট বন্ধ রাখা যাচ্ছিল না। জীবনের চাইতে জীবিকা বড় এবং জীবনের প্রয়োজনে কেনাকাটার অনিবার্যতাকে বেশি গুরুত্ব দিতে গিয়ে বিক্রেতা হিসেবে দোকানদার তথা ব্যবসায়ীরা, আর ক্রেতা হিসেবে বিপুল সংখ্যক সাধারণ মানুষকে হাজীগঞ্জ বাজারকেন্দ্রিক বেপরোয়াই মনে হচ্ছিল। এই বেপরোয়া মনোভাবকে নিয়ন্ত্রণ করতে স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ সক্রিয়তা বৃদ্ধি করলে হাজীগঞ্জ বাজার গত রমজানে ভোররাত থেকে সকাল ৯টা-১০টা পর্যন্ত জমজমাট রাখার প্রয়াস চালায় ব্যবসায়ীরা। তারপর অর্থাৎ ১০টা থেকে দিনের বাকি সময় এবং গভীর রাত পর্যন্ত এই বাজারে বেচাকেনা অব্যাহত রাখতে ব্যবসায়ীরা অনেকটা চোর-পুলিশ খেলায় লিপ্ত হয়। অথচ সেই হাজীগঞ্জ বাজার গত ২জুন মঙ্গলবার থেকে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের স্বতঃস্ফূর্ততায় আগামী ১০জুন অর্থাৎ ৯দিন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে। ব্যবসায়িক প্রসিদ্ধি এবং ঐতিহাসিক বড় মসজিদের খ্যাতিতে বহুল পরিচিত প্রাচীন হাজীগঞ্জ বাজার প্রতিষ্ঠার পর একটানা ৯দিন বন্ধ থাকার কোনো ঘটনা স্মরণকালে তো নয়ই, স্মরণাতীত কালেও কক্ষণো ঘটেছে বলে জানা যায় নি। জীবন বাঁচানোর প্রয়োজনে এই বাজারটি সাময়িকভাবে বন্ধ রাখতে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের স্বতঃস্ফূর্তভাবে এগিয়ে আসাটা ইতিহাসের পাতায় বিরল ঘটনা হিসেবে লিখিত থাকবে অনন্তকাল ধরে-এমনটি নির্দ্বিধায় বলা যায়।



২জুন মঙ্গলবার থেকে ১০ জুন বুধবার পর্যন্ত বাজার বন্ধ রাখার কঠোর সিদ্ধান্ত কার্যকর করার উদ্দেশ্যে সোমবার বিকেলে হাজীগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ীরা তাদের সমিতির আয়োজনে মতবিনিময় সভায় মিলিত হয়। হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ মাঠে আয়োজিত সভায় উপস্থিত বিপুল সংখ্যক ব্যবসায়ী হাত তুলে দোকান বন্ধ রাখার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। এ অঙ্গীকার যারা ভঙ্গ করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাগ্রহণে আসবে না নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, আনসার ও সেনাবাহিনী। ব্যবস্থাগ্রহণ করবে ব্যবসায়ী সমিতি স্বয়ং। উক্ত সভায় শুধু ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ও ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন না, আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়রের মতো প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনের পক্ষে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও থানার পরিদর্শক (তদন্ত)সহ গণমাধ্যম কর্মীরা।



মুহূর্তের মধ্যে হাজীগঞ্জ বাজার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও অনলাইন মিডিয়ার কল্যাণে ছড়িয়ে পড়ে পুরো জেলায়। এই সিদ্ধান্ত প্রভাব ফেলে ঝুঁকিপ্রবণ আরো কিছু বাজার বন্ধ রাখার ক্ষেত্রে। সেজন্যে মতলব দক্ষিণ উপজেলা সদরস্থ মতলব বাজার ৩জুন থেকে ১৩জুন পর্যন্ত অর্থাৎ ১১দিন বন্ধ রাখার জন্যে উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি এবং মতলব বাজার বণিক ও জনকল্যাণ সমিতি যৌথভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। অনুরূপ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার গুরুত্বপূর্ণ বাজার বলাখালের ব্যবসায়ীরাও। এজন্যে বলাখাল বাজার ব্যবসায়ী সমিতি কর্তৃক মঙ্গলবার আয়োজিত সভায় সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এমন সিদ্ধান্ত গ্রহণকালে উক্ত সভায় ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ছাড়া প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের কাউকে উপস্থিত রাখার ব্যাপারে সমিতি কোনোরূপ প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেননি। কারণ হচ্ছে নিজেদের স্বতঃস্ফূর্ততা।



বস্তুত স্বতঃস্ফূর্ত আবেগ ও উদ্যোগ এবং এর মাধ্যমে গৃহীত সিদ্ধান্ত যে কতো বড় শক্তি, তা হাজীগঞ্জ, মতলব ও বলাখাল বাজারের ব্যবসায়ীরা প্রমাণ করতে পারবে বলে আমাদের বিশ্বাস। সরকার ৩১ মে থেকে দেশব্যাপী লকডাউন শিথিল করার পর করোনা পরিস্থিতির উন্নতির পরিবর্তে অবনতি হওয়ার প্রেক্ষাপটে জীবিকার চেয়ে জীবন বড় এ বিষয়টি ব্যবসায়ীরা গভীরভাবে উপলব্ধি করতে সক্ষম হয়েছে। এতোদিন এই উপলব্ধির অভাবটাই প্রকটভাবে দৃশ্যমান হচ্ছিল। এই উপলব্ধি ছড়িয়ে পড়ুক সবখানে-এমন প্রত্যাশা থাকলো আমাদের।


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৮৬০
পুরোন সংখ্যা