চাঁদপুর, শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬, ২১ জিলহজ ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৪-সূরা কামার


৫৫ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


 


 


assets/data_files/web

বাণিজ্যই হলো বিভিন্ন জাতির সাম্য সংস্থাপক। -গ্লাডস্টোন।


 


 


কাহারো উপর অত্যাচার করা হইলে সে যদি সবর করিয়া চুপ থাকিতে পারে, আল্লাহ তাহার সম্মান বৃদ্ধি করিয়া দেন।


 


ফটো গ্যালারি
দম্পতিদের সংশ্লিষ্টতা : মাদকের ভয়াবহতা নির্দেশক
২৩ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


শহুরে পরিবেশে অত্যাধুনিক হতে গিয়ে কিংবা নিজেকে অত্যাধুনিক দেখাতে গিয়ে কিছু মেয়ে ধূমপান করে, এমনকি মাদকও গ্রহণ করে। কিন্তু গ্রামীণ পরিবেশে এমনটি বিরল। স্বামী নেশা করে তথা মাদকাসক্ত বলে সংসার করবে না এমন হুমকি দিয়ে বহু নারীর বাপের বাড়ি চলে যাওয়ার অসংখ্য ঘটনা অনেকেরই জানা আছে। স্বামীর মাদকাসক্তির কারণে গৃহবধূর সংসার ভাঙ্গার ঘটনা কম নয়। স্বামীর ধূমপানের কারণে প্রতিবাদস্বরূপ অনেক স্ত্রী একত্রে না থাকার ঘটনাও এই সমাজে আছে। আবার স্বামীকে ধূমপান থেকে ফেরাতে না পেরে সন্তানদের ধূমপান করার নির্দেশ দিয়ে স্ত্রীর অভিনব প্রতিবাদ করার ঘটনা শোনা যায়। এমনকি স্বামীর ধূমপান ও মাদকে ক্ষিপ্ত হয়ে ২-১ জন স্ত্রীকে জ্বলন্ত সিগারেটে কপাল পোড়ার ঘটনাও ঘটাতে দেখা যায়।



আমাদের সমাজে নারীরা এতোটাই মাদকবিরোধী যে, নিজের নাড়িছেঁড়া ধন সন্তান মাদকাসক্ত হয়ে চরম বিপথগামী হলে তাকে পুলিশে সোপর্দ করতে মোটেও দ্বিধাবোধ করে না। এমন সন্তানকে পুলিশে দেয়ার সময় কোনো কোনো নারী চিৎকার করে বলে যে, তোকে পেটে (গর্ভে) নিয়ে আমি ভুল করেছি, তোর মুখ আর আমি দেখতে চাই না। তুই মরে যা, মরে যা। এমনও দেখা গেছে, মাদকাসক্ত সন্তানের হাতে প্রাণ হারিয়েছে, কিংবা মার খেয়ে মরণাপন্ন হয়েছে, তবুও কোনো কোনো নারী আপোষ করেনি।



মাদকবিরোধিতায় আমাদের নারীদের এমন দৃঢ় অবস্থান ও সুনামের প্রেক্ষাপটে যদি জানা যায়, মাদক সেবন ও ব্যবসার সংশ্লিষ্টতায় স্বামীর সাথে, এমনকি স্বামী ও সন্তানের সাথে নারী আটক হয়েছে, তখন পর্যবেক্ষক, সুধী-সজ্জন ও সচেতন মানুষ উদ্বিগ্ন না হয়ে পারে না। বিচ্ছিন্নভাবে অনেক নারী অর্থের লোভে কিংবা নানা প্রলোভনে মাদক পাচার করতে গিয়ে আটক হবার খবর যতোটা না উদ্বেগের বিষয় তারচে' বেশি উদ্বেগের বিষয়, যদি জানা যায় স্বামী-স্ত্রী তথা দম্পতি মাদক সংশ্লিষ্টতায় আটক হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে এমন আটক বৃদ্ধি পাওয়াতে এটাকে অপরাধ বিশেষজ্ঞরা মাদকের ভয়াবহতার নির্দেশক বলে মনে করছেন।



গতকাল বৃহস্পতিবার চাঁদপুর কণ্ঠে 'ইয়াবাহসহ দম্পতি আটক' শীর্ষক একটি সংবাদ প্রথম পৃষ্ঠায় স্থান পেয়েছে। এরা হচ্ছে লিটন বকাউল ও তার স্ত্রী সীমা বেগম। এদেরকে চাঁদপুর শহরের নাজিরপাড়ার উত্তরাংশে তালুকদার ভিলার ৬ষ্ঠ তলার একটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে মাদকসহ আটক করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। এরা ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে নিরিবিলি ভদ্র পরিবেশে মাদক বেচাকেনা করছিলো। মঙ্গলবার চাঁদপুর কণ্ঠের প্রথম পৃষ্ঠায় প্রকাশিত হয়েছে 'ঢালীরঘাটে থানা-পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযান : ইয়াবাসহ বাবা-মা ও ছেলে আটক'। এই আটককৃতরা হচ্ছে চাঁদপুর শহরতলীর ঢালীর ঘাটের সিরাজ ঢালী, তার স্ত্রী ও ছেলে টিপু ঢালী। পুলিশ জানায়, সিরাজ ঢালী শুধু তার স্ত্রীসহই মাদক বিক্রি করে না তার ছেলেরাসহ পরিবারের সকলেই এর সাথে জড়িত।



এভাবে দম্পতি সহ পুরো পরিবারের মাদক বিক্রির ঘটনা সত্যিই উদ্বেগজনক। এভাবে যে আরো কতো দম্পতি ও পরিবার পুলিশের ধরা-ছোঁয়ার বাইরে মাদক বিক্রি করছে, সেটা নিশ্চয়ই পুলিশসহ অনেকেরই জানা নেই। সচেতন ব্যক্তিরা পুলিশের ৯৯৯ নম্বরে নিজের পরিচয় গোপন করে কিংবা অন্য উপায়ে তথ্য দিয়ে এমন বিপথগামী দম্পতি ও পরিবার সম্পর্কে জানান দিতে পারেন। আর বাড়ির মালিকরা ভাড়াটিয়াদের কারো কারো সন্দেহজনক গতিবিধি লক্ষ্য করেও মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী চিহ্নিত করে কিংবা আন্দাজ করে পুলিশকে জানাতে পারেন। এভাবে সকলে সক্রিয় হলে মাদকের ভয়াবহতা ক্রমশ হ্রাস পাবে বলে আমরা মনে করি।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৭৭০৭০
পুরোন সংখ্যা