চাঁদপুর, সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১০ কার্তিক ১৪২৭, ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
শাশ্বত বাঙালিয়ানার উৎসব
পীযূষ কান্তি বড়ুয়া
২৬ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


শারদীয়ার মর্ত্যে আগমন নেহায়েত ধর্মের আয়োজন বা সনাতনী সম্প্রদায়ের একান্ত কোন আচার-অনুষ্ঠান নয়। দুর্গতি নাশিনীর যখন মর্ত্যে আবাহন ঘটে তখন এই শাশ্বত বাংলাজুড়ে বিচরণ করে শরৎ। বর্ষায় রোপা ধান শরতে বাড়ে আর হেমন্তে তা নিয়ে আসে নবান্ন। কৃষিভিত্তিক বাঙালি সমাজে শরতে ব্যস্ততা থাকে কম। তাই এ সময়ে শারদীয়ার উৎসবের উপযুক্ত সময়। ঘরে ঘরে আনন্দের মাদল বাদ্য বাজিয়ে সাদা মেঘ, শুভ্র কাশের পবিত্রতা নিয়ে প্রকৃতির সাথে একাত্ম হয়ে শুরু হয় মৃন্ময়ীকে চিন্ময়ী রূপ দিয়ে বরণ করার সার্বজনীন উৎসব। এ উৎসব লোকায়ত বাংলার সংস্কৃতির স্রোতকে ধারণ করে। জীবনকে কেবল যাপন নয়, উদযাপনের সকল আয়োজনের জন্যে শারদীয়া হয়ে আসে প্রতিমার প্রতীক হয়ে। বাঙালি নারী সে দশভুজা দুর্গার মতো। সাংসারিক কর্ম হতে শুরু করে সন্তান প্রতিপালন এবং শক্তির অনন্ত প্রবাহ হয়ে নারী বাঙালি কৃষিভিত্তিক সমাজকে বল দিয়েছে, শক্তি দিয়েছে। বাঙালি নারী তাই এক অর্থে দেবীতুল্যা। দশভুজা দুর্গার মতোই বাঙালি নারী ধারণ করে প্রয়োজনে অস্ত্র আর ধ্বংস করে সংসারের সকল অসুর। এভাবেই আবহমানকাল হতে নারী হয়ে উঠেছে বাঙালির প্রগতির প্রতীক। সামন্তবাদী সমাজে নারীকে দমিয়ে রাখার প্রচেষ্টা থাকলেও আস্ত সংসারটা নারীই সামলে রাখে দশভুজার মতো। এই নারীর মধ্যেই লুকায়িত আছে পরিবারের ধনভা-ারের কর্ত্রী লক্ষ্মী, সন্তানের প্রথম শিক্ষক সরস্বতী।



মাকে যেমন সন্তান তার মনের মতো করে কল্পনা করে, তেমনি দেবী দুর্গাকেও ভক্ত বাঙালি কল্পনা করে নেয় যার যার মতো করে। বিশ্বব্যাপী এই প্যান্ডেমিক সিচুয়েশনকালে মানুষ পরিত্রাণের আশায় শারদীয়ার মুখাপেক্ষী হয়ে আছে। অদৃশ্য ভাইরাসের কবলে পড়ে ত্রাহি মধুসূদন অবস্থা হওয়া মানুষ দুর্গাকে এই দুর্দিনে ডাক্তারের ভূমিকায় কল্পনা করে তৈরি করেছে চিকিৎসকের আদলে ঠাকুর। তার হাতে ত্রিশূলের পরিবর্তে এই দু হাজার কুড়ি সালে উঠেছে ইঞ্জেকশান সিরিঞ্জ। এটাই আজকের দিনে যুদ্ধ জয়ের বড় অস্ত্র। অসুরের জায়গায় কল্পিত হয়েছে করোনা জীবাণুর প্রতিকৃতি। দুর্গার বাহিনীতে সেবিকার পোশাকে লক্ষ্মী, সাংবাদিকের ভূমিকায় সরস্বতী কিংবা পরিচ্ছন্নতা কর্মীর আদলে কার্তিক আর পুলিশ গণেশ ঠাকুরের প্রতিমা দিয়ে দুর্গাকে এবার অনেকেই করোনার বিরুদ্ধে ফ্রন্টলাইন যোদ্ধার ভূমিকার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। এই থিমেটিক ঠাকুর নির্মাণের প্রয়াস থেকে এটাই বুঝা যায়, দুর্গা কেবল ঠাকুর বা প্রতিমা নয়, দুর্গা হচ্ছে বাঙালির মানস প্রতিমা। বাঙালি মানস এক এক মন্ডপে এক এক রূপে দুর্গা মা-কে কল্পনা করে সৃজন করে। বাঙালি দুর্গার মধ্যে মা-কে কিলবা মেয়েকেই শুধু দেখে না,বরং মুশকিল আসানের এক ত্রাণকর্ত্রীরূপে কল্পনা করে। তাই যে বছর যেখানে যে উপদ্রব বেশি হয়, দুর্গাকে সেই উপদ্রব নাশিনী রূপেই বাঙালি কল্পনা করে।



এবারের দুর্গা বাঙালির সত্যিকারের দুর্গতিনাশের মানস প্রতিমা। স্বর্গ হতে যে শারদীয়া সদলবলে আসেন মর্ত্যে, তিনি আসেন পিতৃগৃহে বার্ষিক নায়রের ভ্রমণে। অসুর দমন তার ধর্মের কর্তব্য হলেও পিতৃগৃহে সপুত্রকন্যা ভ্রমণ সে তো শাশ্বত বাঙালিয়ানার কল্পনাশৈলির বাস্তবায়ন। কাজেই দুর্গার মর্ত্যে আগমন সার্বজনীন এক উৎসবের উপলক্ষ। এ উৎসবে পতিতার যেমন অধিকার আছে তেমনি অধিকার আছে কামার, কুমোর, বনেদী-ব্রাত্য সকলের। দুর্গা আসে ঐক্যের বারতা নিয়ে, বিভেদের বারতা নয়। দুর্গা আসে সম্প্রীতির বাদ্য বাজিয়ে, দুর্গা সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে আসে না।



দুর্গতিনাশিনী দুর্গা শান্তির বারতা নিয়ে আসে, দুর্দশা শেষে স্থিরতার আগমনী নিয়ে আসে। অসুরবিনাশিনী অসুন্দরকে দূর করে সুন্দরের সম্মিলনে এই বঙ্গভূমিকে শ্যামলা-কুন্তলা করে তোলে। দুর্গার আগমন তাই বাঙালি চিত্তে আনে আস্থার উদ্ভাস। শারদীয়ার আবাহন তাই সত্যিকার অর্থে বাঙালির বাঙালি আনার বিজয়ের উৎসব। ধর্ম-বর্ণ-গোত্র-গোষ্ঠী নির্বিশেষে সবার জন্যেই হোক শারদীয়ার শুভ কামনা।



 


হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭৯-সূরা নাযি 'আত


৪৬ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


১৩। ইহা তো কেবল এক বিকট আওয়াজ,


১৪। তখনই ময়দানে উহাদের আবির্ভাব হইবে।


১৫। তোমার নিকট মূসার বৃত্তান্ত পৌঁছিয়াছে কি?


১৬। যখন তাহার প্রতিপালক পবিত্র উপত্যকা তুওয়া-য় তাহাকে আহ্বান করিয়া বলিয়াছিলেন,


 


 


সৌভাগ্য এবং প্রেম নির্ভীকের সঙ্গ ত্যাগ করে।


-ওভিড।


 


 


যে ব্যক্তি আল্লাহ ও পরকালে বিশ্বাস করে (অর্থাৎ মুসলমান বলে দাবি করে) সে ব্যক্তি যেন তার প্রতিবেশীর কোনো প্রকার অনিষ্ট না করে।


 


ফটো গ্যালারি
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৪,৩৬,৬৮৪ ৫,৫৪,২৮,৫৯৬
সুস্থ ৩,৫২,৮৯৫ ৩,৮৫,৭৮,৭০৩
মৃত্যু ৬,২৫৪ ১৩,৩৩,৭৭৮
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৯১৪৩৬২
পুরোন সংখ্যা