চাঁদপুর। বৃহস্পতিবার ২৫ আগস্ট ২০১৬। ১০ ভাদ্র ১৪২৩। ২১ জিলকদ ১৪৩৭
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কসহ আরো ৯ জনের করোনা শনাক্ত, মোট আক্রান্ত ২১৯
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৫-সূরা ফুরকান

৭৭ আয়াত, ৬ রুকু, ‘মক্কী’

পরম করুণাাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

১৯। আল্লাহ মুশরিকদিগকে বলিবেন, ‘তোমরা যাহা বলিতে উহারা তাহা মিথ্যা সাব্যস্ত করিয়াছে। সুতরাং তোমরা শাস্তি প্রতিরোধ করিতে পারিবে না এবং সাহায্যও পাইবে না। তোমাদের মধ্যে যে সীমালঙ্ঘন করিবে আমি তাহাকে মহাশাস্তি আস্বাদন করাইব।  

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


সুন্দর জিনিস চিরকালের আনন্দ।

-কিটস।


নামাজে তোমাদের কাতার সোজা কর, নচেৎ আল্লাহ তোমাদের অন্তরে মতভেদ ঢালিয়া দিবেন।  

-হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)


ফটো গ্যালারি
হাঁক ডাক করে কৃষি প্রযুক্তি ও বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন হলেও শেষ হয়েছে ঢিলেঢালাভাবে
কৃষিকণ্ঠ রিপোর্ট
২৫ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

চাঁদপুরের জেলা প্রশাসন, কৃষি সম্পসারণ অধিদপ্তর ও সামাজিক বন বিভাগের আয়োজনে সপ্তাহব্যাপী কৃষি প্রযুক্তি ও বৃক্ষ মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ মেলা গত ১ থেকে ৭ আগস্ট পর্যন্ত চাঁদপুর স্টেডিয়ামে চলে। ১ আগস্ট সকালে হাঁকডাক করে কৃষি প্রযুক্তি ও বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন হলেও শেষ হয়েছে ঢিলেঢালাভাবে ৭ আগস্ট বিকেলে। টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে মেলার উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি চাঁদপুর -৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ডাঃ দীপু মনি।

চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডলের সভাপ্রধানে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ মাহবুবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র নাছির উদ্দিন আহামেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল ও জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ- পরিচালক মোঃ আলি আহম্মদ প্রমুখ।

সপ্তাহব্যাপী মেলায় প্রথম ৩ দিন কৃষি প্রযুক্তির উপর বিশেষ প্রোগ্রামের কথা ছিলো। প্রযুক্তির স্টলগুলোর চারপাশে ছিলো কাদা পানি। যার কারণে মেলায় দর্শনার্থীরা আসতে পারে নি। কৃষি প্রযুক্তির কলা কৌশল নিয়ে সুন্দর মতো সাজিয়েছেন স্টলগুলো। সেগুলো হচ্ছে কৃষিজ পণ্য, জৈব সার উৎপাদন ও ব্যবহার, তথ্য অভ্যর্থনা, সম্মিলিত খামার ব্যবস্থাপনা, ফসল চাষের নিবিড়তা বৃদ্ধি, পেস্ট মিউজিয়াম, বীজ উৎপাদন ও সংরক্ষণ, অপ্রচলিত ফসল আবাদ, উৎপাদন ফসল ও অঙ্গজ বংশ বিস্তার, সার ব্যবস্থাপনা, সেচ ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি। কিন্ত সব কিছুই প- হয়ে গেছে।

মেলায় পরের ৪ দিন বৃক্ষের উপর নানা বিষয়ে প্রোগ্রাম থাকলেও করতে পারেনি কৃষি সম্পসারণ অধিদপ্তর। সমাপনী দিনে শুধুমাত্র কৃষি সম্পসারণ অধিদপ্তরের ঢিলেঢালাভাবে উপ-কৃষি কর্মকর্তাদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে। এদিকে মেলার স্টল ছিলো মানুষ শূন্য। অপরদিকে মেলার বাজেট ছিলো কম। যার কারণে ঢিলেঢালাভাবে সমাপনী অনুষ্ঠান হয়েছে বলে জানিয়েছন কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে চাঁদপুরের কৃষি সম্পসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ আলি আহম্মদ বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে (জঙ্গি হামলার কারণে) মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে বলে মেলায় বেচা-বিক্রি কম হয়েছে। মানুষের উপস্থিতি ছিলো কম। যার কারণে এ বছর নার্সারীর মালিকগণ হতাশ হয়েছেন। তারা গত বছরের মতো গাছের চারা বিক্রি করতে পারেন নি। তিনি আরো বলেন, মেলা উপলক্ষে আমাদের প্রশিক্ষণ ভালো হয়েছে। তবে মেলার প্রদর্শনীতে আমরা ভালো করতে পারিনি। আমাদের এ মেলার জন্যে প্রথমে স্থান নির্ধারণ করা হয়েছিলো হাসান আলি হাইস্কুল মাঠে। সেখানে আমরা প্যান্ডেল করি। পরে মেলায় দর্শনার্থীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের পরামর্শে চাঁদপুর স্টেডিয়ামে করা হয়েছে।

আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৭৫৫২৬
পুরোন সংখ্যা