চাঁদপুর, রবিবার ২৩ আগস্ট ২০১৫ | ৮ ভাদ্র ১৪২২ | ৭ জিলকদ ১৪৩৬
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুরে আরো ১২ জনের করোনা শনাক্ত, মোট আক্রান্ত ১৫৯
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৯-সূরা হাক্কা :


৫২ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


১৮। সেই দিন উপস্থিত করা হইবে তোমাদিগকে এবং তোমাদের কিছুই গোপন থাকিবে না।


১৯। তখন যাহাকে তাহার আমলনামা তাহার দক্ষিণ হস্তে দেওয়া হইবে, সে বলিবে, 'লও, আমার আমলনামা, পড়িয়া দেখ;


 


 


assets/data_files/web

যে যা বলে বলুক, তুমি তোমার নিজের পথে চল।


-দান্তে।


 


 


পুরাতন কাপড় পরিধান করো, অর্ধপেট ভরিয়া পানাহার করো, ইহা নবীসুলভ কার্যের অংশ বিশেষ।


 


ফটো গ্যালারি
মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পে আউশ ও আমন ধানের বীজতলা নষ্ট কৃষকরা দুশ্চিন্তায়
মোঃ মাহবুব আলম লাভলু
২৩ আগস্ট, ২০১৫ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্পে ভয়াবহ জলাবদ্ধতায় জন দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে। আউশ ও আমন ধানের বীজতলা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় কৃষকরা পড়েছে দুশ্চিন্তায়। ফসল নষ্ট হয়ে গেছে, পাকা ও কাঁচা রাস্তা চলাচলে অনুপযোগী হয়ে যাচ্ছে, মৎস্য খামার তলিয়ে গেছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমে গেছে, বাজারে বিক্রি কম, শ্রমিকদের উপার্জন নেই, মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারে চলছে অভাব-অনটন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, বৃষ্টিতে সৃষ্ট জলাবদ্ধতায় ৩শ' হেক্টর জমির আউশ ধানের জমি ও ৩০ হেক্টর আমন ধানের বীজতলা নষ্ট হয়ে গেছে। ঊঁচু জমিতে জলাবদ্ধতার কারণে অনেক কৃষক এখনও আমন ধানের বীজতলা করতে পারেনি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল কাইয়ুম মজুমদার জানান, বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় ও দ্রুত পানি না সরানোর ফলে আউশ ধানের জমি ও আমন ধানের বীজতলা নষ্ট হয়েছে। আমরা আমন ধানের বীজ কৃষকের মাঝে সরবরাহ করার চেষ্টা করছি।

বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে এ উপজেলার পাকা ও কাঁচা রাস্তার অনেক ক্ষতি হয়েছে। পাকা রাস্তায় গর্ত ও কাঁচা রাস্তায় কাদার কারণে যানবাহন এবং মানুষ চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। কাঁচা রাস্তাগুলো এমন খারাপ হয়েছে মানুষ রাস্তার কারণে বাড়ি থেকে বের হতে পারছে না। বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে মৎস্য খামার। খামার থেকে মাছ বেরিয়ে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে করে খামারীরা মূলধন হারাবে ও বাজারে মাছের ঘাটতি দেখা দেবে।

অতি বৃষ্টির ফলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমে গেছে। বৃষ্টির কারণে জমি ও নির্মাণধীন প্রতিষ্ঠানে কাজ হচ্ছে না। যার কারণে শ্রমিকদের উপার্জন নেই। মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারে চলছে অভাব-অনটন। সার্বিকভাবে মতলব উত্তরে সাধারণ মানুষের বেহাল দশা বিরাজ করছে।

আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৯৫৪২
পুরোন সংখ্যা