চাঁদপুর, রোববার ৫ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭, ১৩ জিলকদ ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭১-সূরা নূহ্


২৮ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


 


১৩। তোমাদের কী হইয়াছে যে, তোমরা আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব স্বীকার করিতে চাহিতেছ না!


১৪। অথচ তিনিই তোমাদিগকে সৃষ্টি করিয়াছেন পর্যায়ক্রমে,


 


 


সবচেয়ে ছোট আনন্দগুলো সবচেয়ে মধুর।


-ফারকুহার।


 


 


 


পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ।


 


ফটো গ্যালারি
পাটের দেশে পাটকল নির্বাসনে!
প্রফেসর ড. মোহাঃ হাছানাত আলী
০৫ জুলাই, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


পাটের রাজধানী খ্যাত বাংলাদেশ থেকে নির্বাসনে যেতে বসেছে পাটকল। কথাটা ভাবতেই কষ্ট লাগছে। একসময় সোনালী অাঁশের দেশ হিসেবে বাংলাদেশ সারা বিশ্বে পরিচিতি লাভ করেছিল। পাট ছিল বাংলাদেশের অন্যতম অর্থকরী ফসল। সোনালী অাঁশের প্রিয় দেশ এখন পরিবেশ দূষণকারী পলিথিনের দেশে পরিণত হয়েছে। প্রায় ১৭ কোটি মানুষের দেশে যদি পাটের উৎপাদিত পণ্যের ব্যবহার নিশ্চিত করা যেত তাহলে হয়ত সরকারকে পাটকলগুলো বন্ধ করার মত অজনপ্রিয় সিদ্ধান্ত নিতে হতো না। অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা ও সীমাহীন দুর্নীতিতে নিমজ্জিত সরকারি পাটকলগুলো আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে।



বিশ্ববাজারে পাট ও পাটজাত পণ্যের ব্যাপক চাহিদা থাকা সত্ত্বেও শুধুমাত্র ব্যবস্থাপনার অদক্ষতা, শ্রমিক নেতৃবৃন্দের দৌরাত্ম্য, সরকারি নীতিনির্ধারক শ্রেণীর সীমাহীন উদাসীনতা দেশের ঐতিহ্যবাহী পাটশিল্পের সার্বজনীন ব্যবহারকে বিশ্ববাজারে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেনি। পলিথিন দখল করে নিয়েছে পাটজাত পণ্যের বাজার। পলিথিনের যথেচ্ছাচার ব্যবহারের ফলে আমাদের পরিবেশ ধ্বংস হয়েছে, খাল-বিল, নদী-নালা পলিথিনে ভরাট হয়ে গেছে। বড় বড় শহরের ড্রেনেজ সিস্টেমগুলো অনেকাংশে অচল হয়ে পড়া সত্ত্বেও এক অজানা কারণে আমরা পলিথিনের ব্যবহারকে রুখতে পারিনি। পাটজাত পণ্যের ব্যবহার দেশে আস্তে আস্তে কমতে থাকলো। বাড়তে থাকলো পরিবেশ ধ্বংসকারী পলিথিনের ব্যবহার।



পাট একসময় আমাদের জাতীয় কৃষিজ ফসল হিসেবে দেশে বিদেশে ব্যাপক সমাদৃত ছিলো। ছিলো একমাত্র বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী দেশজ কৃষি ফসল। অবহেলা আর অবজ্ঞায় পাট আজ বিলুপ্তপ্রায়।



পাটকে কেন্দ্র করে দেশের নারায়ণগঞ্জে গড়ে উঠেছিল বিশ্বের সর্ববৃহৎ পাটকল 'আদমজী জুট মিলস'। প্রায় লক্ষাধিক লোকের কর্মসংস্থান হয়েছিলো। বিশ্বের মোড়ল সংস্থা ও দেশ সমূহের পরামর্শে আমরা সেটাও বন্ধ করে দিয়েছি। দেশে পাটজাত পণ্যের বাজারকে নিরুৎসাহিত করার জন্য আইন বহির্ভূতভাবে পরিবেশের জন্য ব্যাপক ক্ষতিকর পলিথিন কারখানা দেশে তৈরি হলো। আইনগত বিধিনিষেধ থাকা সত্ত্বেও পলিথিনে ছেয়ে গেল আমাদের হাট-ঘাট ও বাজার। আমরা দেখেও না দেখার ভান করলাম। অথচ সঠিক পরিকল্পনার অভাবে পরিবেশ সহায়ক হওয়া সত্ত্বেও পাটজাত পণ্যের বহুমুখী ব্যবহার নিশ্চিত করতে পারলাম না। সংশ্লিষ্টদের যথাযথ তদারকির অভাবে পাট আজ দেশ থেকে নির্বাসিত হবার পথে। অথচ পাটের সাথে জড়িয়ে আছে আমাদের আবেগ, কৃষকের ভালবাসা।



ভাবতে খুব অবাক লাগে যে, যখন লোকসানের অজুহাতে দেশে একের পর এক পাটকল বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তখন পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে নতুন নতুন পাটকল সীমান্ত ঘেঁষে তৈরি হচ্ছে। পাটচাষের জন্য বাংলাদেশের মাটি যে পরিমাণ ঊর্বর ও উপযোগী তা কিন্তু ভারতসহ অন্যান্য দেশের মোটেই নয়। তাহলে কেন আমরা পাটকল চালাতে পারছি না? ভারত পারছে কী করে? আমরা পারলাম না কেন? এসব প্রশ্নের উত্তর খোঁজাটা দেশ ও দেশের কৃষকের স্বার্থে আজ খুবই জরুরি। পাটকে বাঁচাতে এবং এর বিকাশে দেশে পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয় রয়েছে। আছে আলাদা পাট অধিদপ্তর। তাদেরই বা কাজ কী? রাষ্ট্রীয় অর্থে পরিচালিত বিভিন্ন সংস্থা এ কাজে নিয়োজিত থাকলেও এ সেক্টরের অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার কারণে বাঁচানো যাচ্ছে না সোনালী অাঁশ খ্যাত পাট শিল্পকে। শত সমস্যা, শত সীমাবদ্ধতার মধ্যেও কিন্তু দেশের কৃষক আশায় বুক বেঁধে পাট চাষ করে গেছে। পাটের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে পাটে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছে। তারপর আবার দেশের পাট চাষীরা সুদিনের আশায় পাটচাষ করেছে ঐতিহ্যবাহী পাটকে টিকিয়ে রাখার স্বার্থে।



সরকারি পাটকল সংস্থার নিয়ন্ত্রণাধীন পাটকলের সংখ্যা ২৭টি। তবে এর মধ্যে তিনটি আবার ননজুটমিলস্। ৬টি নতুন পাটকলসহ এ সংখ্যা এখন ৩৩টি। এই ৩৩টির মধ্যে বন্ধ পাটকলের সংখ্যা ৭টি। বাকিগুলো খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে বিভিন্ন অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা ও অদক্ষতার মধ্য দিয়ে।



সরকার করোনা মহামারির মধ্যেই অতি সমপ্রতি ২৫টি পাটকল বন্ধ ঘোষণা করে শ্রমিককে গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের মাধ্যমে সমুদয় পাওনা পরিশোধ করে বিদায় করে দেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই সিদ্ধান্তের ফলে মোট ২৪ হাজার ৮৮৬ জন স্থায়ী শ্রমিক চাকরি হারাবে। নাম লেখাবে বেকারের খাতায়। এদিকে ২০১৩ থেকে আজ অবধি ৯৫৪ জন শ্রমিক সাধারণ নিয়মে অবসরে গেছেন। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, অর্থ সংকটের কারণে তাদের অবসর ভাতা এখনও পরিশোধ করা যায়নি। গত ৪৮ বছরে সরকারকে এ খাতে মোট ১০হাজার ৬৭৪ কোটি টাকা লোকসান গুণতে হয়েছে। যা পরিশোধ করতে হয়েছে জনগণের ট্যাঙ্রে টাকায়।



সরকারি খাতের পাটকলগুলো দিন দিন রুগ্ন হলেও বেসরকারি খাতের পাটগুলো কিন্তু ঠিকই লাভ করছে এবং ভালভাবে টিকে আছে। বেসরকারি খাতের পাটকলগুলো মুনাফা করলেও সরকারি পাটকলগুলো কেন রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা পেয়েও কোটি কোটি টাকা প্রতিবছর লোকসান দিলো তা কি খতিয়ে দেখা হবে কোনোদিন? যারা এ খাতকে রুগ্ন করার জন্য দায়ী তারা কি কোনোদিন বিচারের মুখোমুখি হবে?



বেসরকারি খাতে দেশে মোট পাটকলের সংখ্যা ২৮১টি। যার মধ্যে বন্ধ ৫৬টি। সরকার পাটকলগুলোকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করার লক্ষ্যে মিলগুলোকে আধুনিকায়ন করার পর তা সরকারি-বেসরকারি পার্টনারশিপে চালু করা হবে মর্মে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। খুবই ভাল কথা। তবে এক্ষেত্রে দুর্নীতি ও অনিয়ম প্রতিরোধ করাটাই হবে বড় চ্যালেঞ্জ।



সরকার করনোকালে একদিকে শ্রমিক ছাঁটাই না করতে বেসরকারি খাতের শিল্পোদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। শ্রমিকদের সাথে মানবিক আচরণ করতে অনুরোধ করেছে, অন্যদিকে সরকার নিজেই ২৫টি পাটকল বন্ধ করে প্রায় ২৫ হাজার শ্রমিককে কর্মহীন করে দিয়েছে। সরকারের এমন সিদ্ধান্ত বেসরকারি শিল্পোদ্যোক্তাদের কর্মী ছাঁটাই করতে উৎসাহিত করতে পারে। যা সামগ্রিক বিবেচনায় দেশের অর্থনীতির উপর ঋণাত্মক প্রভাব ফেলবে। এছাড়া চাকুরি হারোনো প্রায় ২৫হাজার শ্রমিকের পরিবার কিভাবে দিনাতিপাত করবে তা এক বিরাট প্রশ্ন পরিবারগুলোর সামনে। অনেকের মত আমারও জানতে ইচ্ছে করে, দেশের পাটকলগুলো কি কোনোভাবেই চালোনো যেত না? যাদের অনিয়ম, দুর্নীতি ও অদক্ষতার কারণে পাটকলগুলো বন্ধ হয়ে গেলো তাদের কি কোনোদিন বিচারের মুখোমুখি করা হবে? নাকি তারাও ব্যাংকের টাকা তছরুফকারী ও বিদেশে টাকা পাচারকারীদের মত অধরাই থেকে যাবে? যারা শ্রমিকদের শোষণ করে অবৈধভাবে বাংলাদেশ থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা পাচার করে সুইস ব্যাংকে জমা করেছে তা কি কোনোদিন ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নেয়া হবে? অবৈধভাবে পাচারকৃত এই বিপুল পরিমাণ টাকা ফিরিয়ে এনে পাটকলসহ দেশের উৎপাদনশীল খাতে বিনিয়োগ করা গেলে অসংখ্য কর্মহীন মানুষের কর্মসংস্থান হতো। দেশ অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতো। আসলে সুশাসন ও জবাবদিহিতা ছাড়া টেকসই উন্নয়ন কল্পনাপ্রসূত মাত্র।



লেখক : প্রফেসর ড. মোহাঃ হাছানাত আলী, আইবিএ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। drhasnat77@gmail.com



 


করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ২,৫৫,১১৩ ১,৯৫,৬২,২৩৮
সুস্থ ১,৪৬,৬০৪ ১,২৫,৫৮,৪১২
মৃত্যু ৩৩৬৫ ৭,২৪,৩৯৪
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩৭৭৮১
পুরোন সংখ্যা